Saturday, June 22, 2024

স্বপ্নটা প্রথম দেখেছিলেন মুহিত

ঘটনাটি ২০১৩ সালের। আবুল মাল আবদুল মুহিত দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য পেনশনের ধারণা দিলেন। সরকারি কর্মকর্তাদের কোনো একটা বৈঠকে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী মুহিত যখন তার এ ধারণার বিষয়টি তুলে ধরেন, তখন সেখানে উপস্থিত উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের অনেকেই দ্বিমত পোষণ করেছিলেন। বলেছিলেন, স্যার, এটা সম্ভব নয়।

অর্থমন্ত্রী শান্ত হয়ে ওইসব কর্মকর্তার কথা শুনেছিলেন। সম্ভব না বলা কর্মকর্তাদের যুক্তি শুনে তিনি বলেছিলেন, সবার জন্য পেনশন চালু করতে পারলে এ দেশ থেকে অনেক কিছু দূর হবে। মানুষ যখন দেখবে তার ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত তখন অনেকেই অনিয়ম থেকে সরে আসবে। মানুষ এত অনিয়ম-হানাহানি করে শুধু ভবিষ্যতের জন্য। আর ভবিষ্যতে বেসরকারি পেনশনের সঙ্গে সরকারি চাকরিজীবীদের পেনশনও এক করে দেব। আলাদা পেনশন থাকবে না। অর্থমন্ত্রীর এমন মন্তব্য শুনে নীতিনির্ধারক কর্মকর্তারা আরও ভড়কে গেলেন। কিন্তু অর্থমন্ত্রী মুহিত সবকিছু উপেক্ষা করে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়কে এ সংক্রান্ত আইনের খসড়া তৈরির নির্দেশ দিলেন।

কয়েক মাস পর খসড়া যখন আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে গেল তখন তিনি খুব হতাশ হলেন। অর্থমন্ত্রী অর্থবিভাগের কর্মকর্তাদের ডেকে বললেন, কিচ্ছু হয়নি। তোমরা খসড়া করো। এমন পরিস্থিতিতে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী মুহিতের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে খসড়ার কাজ শুরু হলো। দেশে সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি চালুর নেপথ্যের এ ঘটনা দেশ রূপান্তরের কাছে তুলে ধরেন শ্রম মন্ত্রণালয়ের ওই সময়ের এক গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা। তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে অর্থমন্ত্রী প্রায়ই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলতেন। এ দুজনের প্রত্যক্ষ চিন্তার ফল হচ্ছে সর্বজনীন পেনশন।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, আবুল মাল আবদুল মুহিত মনে করতেন সব নাগরিকের জন্য পেনশন সুবিধা চালু হলে মানুষের নিরাপত্তা বাড়বে। পরিবারের সামাজিক নিরাপত্তা যখন নিশ্চিত হবে, তখন মানুষ আর অন্যায় পথে এগোতে চাইবে না।

২০১৬ সালে পরবর্তী অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপনের সময় আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন, দেশে কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর মাত্র ৫ শতাংশ, যাদের প্রায় সবাই সরকারি চাকুরে, এখন পেনশন সুবিধা পান। বাকি ৯৫ শতাংশের মধ্যে প্রায় ৮ শতাংশ গ্র্যাচুইটি সুবিধা পেলেও অন্যদের জন্য সে সুবিধাও নেই। তখন তার সে কথা বক্তব্য পর্যন্তই থাকে। তবে ২০১৮ সালের বাজেট বক্তৃতায় আবারও একই বিষয় উঠে আসে। এর আগে ওই বছরের ফেব্রুয়ারিতে পাইলট প্রকল্প হিসেবে ৫৭ জনকে এ প্রকল্পের আওতায় আনা হয়। সেই পাইলট প্রকল্পও উদ্বোধন করেছিলেন মুহিত।

কর্মজীবন শেষে সরকারি বা বেসরকারি চাকরিজীবী হোক না কেন, দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ পেনশন সুবিধা পাবেন এ চিন্তা আর এখন স্বপ্ন বা অধরা নয়। বর্তমান সরকার সবার জন্য পেনশন স্কিম বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া শুরু করেছে। আর এ স্বপ্নের মূল কারিগর ছিলেন প্রয়াত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলেন, মুহিত ছিলেন স্বপ্নচারী মানুষ। তিনি নিজে স্বপ্ন দেখতেন, স্বপ্ন দেখাতে ভালোবাসতেন। তার চিন্তা-চেতনায় সবসময় ছিল জনগণের কল্যাণ। সবার জন্য পেনশন সুবিধার প্রস্তাব করে তিনি এটির পেছনে লেগে ছিলেন।

আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণায় সর্বজনীন পেনশনের প্রস্তাব প্রথম তুলেছিলেন। তখন পেনশনের একটি রূপরেখা প্রণয়নের কথা বলেন তিনি।

যে স্বপ্নের কথা বলেছিলেন মুহিত, তার বাস্তবায়ন নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছিলেন। সমালোচকরা বলেছেন, বাংলাদেশের জন্য এ ধরনের প্রকল্প কার্যকর করা সম্ভব নয়। এটি উচ্চাভিলাষী।

তবে এ ব্যাপারে সরকারের কাজ যে সবার অগোচরে এগিয়ে গেছে, সে বিষয়টি স্পষ্ট হয় ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারির এক অনুষ্ঠানে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে সেদিন সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা প্রবর্তন বিষয়ে একটি উপস্থাপনা দেয় অর্থ বিভাগ।

সবার জন্য পেনশন আওয়ামী লীগ সরকারের ২০১৮ সালের নির্বাচনী ম্যানিফেস্টো বা ঘোষণাপত্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতি। আবুল মাল আবদুল মুহিত অর্থমন্ত্রী থাকাকালে ২০১৭-১৮ সালের প্রস্তাবিত বাজেটে তিনি এ স্কিম সম্পর্কে একটি রূপরেখা দিয়েছিলেন। এজন্য পাইলট প্রকল্পের কথাও বলেছিলেন। সর্বজনীন পেনশনকে মুহিত তার স্বপ্নের প্রকল্প বলেও উল্লেখ করেছিলেন। কিন্তু তিনি এটি চূড়ান্ত করে দিয়ে যেতে পারেননি। ২০১৮ সালের নির্বাচনে তার দল আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেও তিনি মন্ত্রিত্ব পাননি বা বার্ধক্যজনিত কারণে নেননি। এরপর পরিকল্পনাটি ঝুলে যায়। পরে অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া আ হ ম মুস্তফা কামাল এ প্রকল্পটি ইতিবাচক হিসেবে গ্রহণ করেন। ধীরে হলেও এগোতে থাকে এর কার্যক্রম।

সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কথা বিবেচনায় নিয়ে সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি চালু করা হচ্ছে গত বৃহস্পতিবার। আপাতত চার শ্রেণির জনগোষ্ঠীর জন্য চার ধরনের পেনশন কর্মসূচি চালু করা হচ্ছে। এগুলোর নাম হচ্ছে প্রগতি, সুরক্ষা, সমতা ও প্রবাসী। যে নামেই চালু হোক, পেছনের স্বপ্নদ্রষ্টাকে বাঁচিয়ে রাখবে এ পেনশন কর্মসূচি। আবুল মাল আবদুল মুহিত চিরঞ্জীব থাকবেন সবার জন্য পেনশনের সুবিধার মাধ্যমেই।

spot_imgspot_img

ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর দিল ভিএফএস

ভিএফএস গ্লোবালের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসেছে ভিএফএস গ্লোবাল। এবার তারা ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর নিয়ে এসেছে। ভিএফএস তাদের নিজস্ব ফেসবুক পেজের মাধ্যমে...

জেলখানার চিঠি বিকাশ চন্দ্র বিশ্বাস  কয়েদি নং: ৯৬৮ /এ  খুলনা জেলা কারাগার  ডেথ রেফারেন্স নং: ১০০/২১ একজন ব্যক্তি যখন অথই সাগরে পড়ে যায়, কোনো কূলকিনারা পায় না, তখন যদি...

কর্মসৃজনের ৫১টি প্রকল্পে নয়ছয় মাগুরায়

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির (ইজিপিপি) আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ের ৫১টি প্রকল্পের কাজে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। প্রকল্পে হাজিরা খাতা না...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here