Friday, June 21, 2024

ভ্যাটও এবার বেসরকারিতে

অর্থভুবন প্রতিবেদক

এজেন্ট দিয়ে কর আদায়ের উদ্যোগের পাশাপাশি এখন ভ্যাট আদায়ও যাচ্ছে বেসরকারি খাতে। ভ্যাট নেওয়ার মেশিন ‘ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস বা ইএফডি’ সরকারিভাবে বসানোর কাজে ব্যর্থতার পর এখন এই কাজ তুলে দেওয়া হয়েছে বেসরকারি খাতের জেনেক্স ইনফোসিস নামের এক প্রতিষ্ঠানকে।

 

জেনেক্স নিজের টাকায় ইএফডি মেশিন বসিয়ে কমিশনের ভিত্তিতে সরকারকে ভ্যাট আদায় করে দেবে। এ জন্য প্রতিষ্ঠানটি প্রতি ১০০ টাকা ভ্যাট আদায় করে ঢাকায় ৫২ ও চট্টগ্রামে ৫৩ পয়সা কমিশন পাবে। মেশিনের সফটওয়্যার তৈরি, নজরদারি, প্রশিক্ষণ ও প্রচারণাও চালাবে জেনেক্স।

 

এরই মধ্যে ৩ হাজার ইএফডি মেশিন দেশে এসে পৌঁছেছে। ধাপে ধাপে বাকিগুলোর আমদানির ঋণপত্র খোলাসহ অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতাও এগিয়ে চলছে। আগামী জুন মাসেই এ কার্যক্রম উদ্বোধনের লক্ষ্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর)। আর জেনেক্স ইনফোসিস দ্রুত এ কাজ শুরুর দিনক্ষণ ঠিক করাসহ যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা চূড়ান্ত করতে এনবিআরের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকে বসছে।

এদিকে ভ্যাট আদায়ের কাজ বেসরকারি খাতে দেওয়ার ফলে ব্যবসায়িক লেনদেনের তথ্য বেহাত হওয়া বা তথ্যের কারসাজির প্রশ্ন সামনে এনেছেন ব্যবসায়ীরা। যদিও এনবিআর বলছে, এ রকম কোনো সুযোগ নেই।

তবে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ  বলেন, ‘ভ্যাট আদায়ের কাজ এনবিআরের। এটা বাইরের একটি প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া মানে নতুন আরেকটি হয়রানি ও অনিয়মের জায়গা তৈরি করা। এটা না করে এনবিআরের উচিত অনেক প্রতিষ্ঠানকে কাজটি দিয়ে একসঙ্গে বেশি বেশি ইএফডি বসিয়ে রাজস্ব আয়ে গতি আনা। নাহলে ভুল বার্তা যাবে।’

জানতে চাইলে এনবিআরের ভ্যাট বাস্তবায়ন ও আইটি বিভাগের সদস্য ড. মইনুল খান অর্থভুবনকে বলেন, ‘ভ্যাট আদায় বাড়াতে এখন ব্যাপক তৎপরতা চালানো হচ্ছে। সামনে আমরা আর সরকারিভাবে ইএফডি কিনে দেব না। এ কাজ আউটসোর্সিং করে দিচ্ছি। একটি বেসরকারি আইটি প্রতিষ্ঠান কাজটি পেয়েছে। তারা সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টসহ যাবতীয় কারিগরি বিষয় প্রায় চূড়ান্ত করেছে। সহসাই আমরা তাদের মাধ্যমে ইএফডি বসিয়ে ভ্যাট আদায়ের কাজ শুরু করতে পারব বলে আশা করি। ইএফডির পেছনে যাবতীয় খরচও ওই প্রতিষ্ঠান করবে। এ জন্য তারা একটা কমিশন পাবে।’

জানা যায়, দেশের অর্থনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারের সঙ্গে সঙ্গে বাড়তি চাহিদা মেটাতে সরকার এখন অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে আয় বাড়াতে মরিয়া। আগামী অর্থবছরে প্রায় ৭ লাখ ৬৪ হাজার কোটি টাকার রেকর্ড খরচের বাজেট দেওয়া হচ্ছে। যেখানে রাজস্ব খাত থেকে আয় ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। আমদানি শুল্কের ওপর নির্ভরতা কমিয়ে এখন আয়ের প্রধান লক্ষ্য ধরা হচ্ছে আয়কর ও ভ্যাট খাতকে।

তা ছাড়া আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছ থেকে নেওয়া ঋণের শর্ত হিসেবে আসছে অর্থবছরেই কর-জিডিপি অনুপাত শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ বাড়াতে হবে। ফলে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে বাড়তি নজরদারি করে তাদের কাছ থেকে রাজস্ব আদায়ই নতুন অর্থবছরের মূল লক্ষ্য।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মতে, জিডিপির হিসাবে প্রায় ২ লাখ কোটি টাকা হচ্ছে খুচরা পর্যায়ের লেনদেন। হোটেল ও রেস্টুরেন্ট ধরা হলে আরও প্রায় ২ লাখ কোটি টাকা যুক্ত হবে। কিন্তু বর্তমানের ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে রাজস্ব আদায়ের কারণে বিপুল রাজস্বের সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো যাচ্ছে না বলে এনবিআর মনে করে। তাই সংস্থাটি উদ্ভাবনী ও স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে রাজস্ব আয়ের পথ খুঁজছে বলে জানা যায়।

তারই অংশ হিসেবে এরই মধ্যে বেসরকারি খাতের এজেন্ট নিয়োগ করে নতুন করদাতা খুঁজে তাদের করের জালে নিয়ে আসার উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হবে আগামী অর্থবছরে।

অন্যদিকে, রাজস্বে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় ভ্যাট খাতেও নেওয়া হয়েছে নতুন পদক্ষেপ। ভ্যাট আদায়ের একটি কাজ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জেনেক্স ইনফোসিসকে দেওয়া হয়েছে। গত বছরের নভেম্বর মাসে প্রতিষ্ঠানটিকে কাজ দিতে সমঝোতা স্মারক সই হয়। পরে তাদের চূড়ান্ত কার্যাদেশ দেওয়া হয়।

প্রতিষ্ঠানটির কাজ হচ্ছে আগামী পাঁচ বছরে ঢাকা ও চট্টগ্রামের তিনটি অঞ্চলে নিজের টাকায় ৩ লাখ ইএফডি মেশিন বসানো। প্রথম বছরে ৬০ হাজার মেশিন বসাতে হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিগুলো বসাবে। পাঁচ বছরের মেশিন বসানোর কাজ পেলেও প্রতিষ্ঠানটি মোট ১০ বছর ভ্যাট আদায়ে এনবিআরের এজেন্ট হিসেবে কাজ করবে। বিপরীতে তারা যে ভ্যাট আদায় করবে, সেখান থেকে ঢাকার জন্য ১০০ টাকায় ৫২ পয়সা এবং চট্টগ্রামের জন্য ৫৩ পয়সা কমিশন কেটে রাখবে।তাতে দেখা যায়, প্রতি এক লাখ টাকা ভ্যাট আদায়ের জন্য ৫২০ ও ৫৩০ টাকা কমিশন পাবে জেনেক্স ইনফোসিস।

যদিও ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট থেকে এনবিআর নিজেই সরকারি টাকায় ব্যবসায়ীদের ফ্রিতে ইএফডি মেশিন সরবরাহ শুরু করে। কিন্তু কয়েক লাখ মেশিনের মধ্যে প্রথম পর্যায়ে গত তিন বছরে মাত্র ১০ হাজার মেশিন বসানোর কাজও শেষ হয়নি। সরকারিভাবে এ কাজে সফলতা না আসায় এবার বেসরকারি খাতে পা বাড়াল এনবিআর।

ভ্যাট বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেনেক্স ইনফোসিসের ৩ হাজার ভ্যাট মেশিনের চালান দেশে এসেছে। সামনে আরও আসছে। আর আগামী জুন মাসে পরীক্ষামূলকভাবে মেশিন বসিয়ে ভ্যাট আদায় কাজের উদ্বোধন করা হতে পারে। মূলত যেখানে ব্যবসায়িক লেনদেন বেশি সে রকম স্থান, শপিং মল ও আইটলেটে এসব ইএফডি মেশিন বসানো হবে। জানা যায়, ভ্যাটের মেশিনে এমনভাবে সফটওয়্যার থাকবে, মাস শেষে এক ক্লিকেই ভ্যাটের রিটার্নও জমা দিতে পারবেন ব্যবসায়ীরা।

জেনেক্স ইনফোসিসের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা জুয়েল রাশেদ সরকার বলেন, ‘সফটওয়্যার তৈরি থেকে শুরু করে ভ্যাট আদায় ও মাঠপর্যায়ে এর নজরদারিসংক্রান্ত সব কাজই আমরা করব। ৩ হাজার মেশিন চলে এসেছে। আমরা দ্রুত কার্যক্রম উদ্বোধনের ব্যাপারে কাজ করছি।’

ব্যবসায়ীরা জানান, দেশে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান আছে প্রায় ৫৪ লাখ। তাদের ভ্যাটের আওতায় আনতে সবার কাছেই ইএফডি মেশিন পৌঁছানো দরকার। এতে রাজস্ব আয় বাড়বে। তবে এটা করতে হবে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে। নাহলে যে প্রতিষ্ঠান কাজ পেল, তার একচেটিয়া আধিপত্য থাকবে। ব্যবসায়ীরা হয়রানি ও ভোগান্তির শিকার হবেন।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু বলেন, ‘একটি প্রতিষ্ঠানকে সফটওয়্যার তৈরি থেকে ইএফডি মেশিন দেওয়া ও ভ্যাটের এজেন্ট হিসেবে কাজ দেওয়ার ফলে এরা কতটা সততার সঙ্গে কাজ করবে, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। তারা যে ব্যবসায়িক লেনদেনের তথ্য বেহাত করবে না তার কী নিশ্চয়তা? তাই আমরা মনে করি, এটা এক প্রতিষ্ঠানকে না দিয়ে উন্মুক্ত করে দিয়ে ১০০টা বা ৩০০টা প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হোক। আর নজরদারি ও তথ্যের সুরক্ষার এখতিয়ার তাদের হাতে নয়; থাকবে এনবিআরের নিয়ন্ত্রণে।’

তবে এ ব্যাপারে এনবিআরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দাবি, নেটওয়ার্কিংয়ের মাধ্যমে এনবিআরের সেন্ট্রাল সার্ভারের সঙ্গে সংযুক্ত থাকায় দোকানের বিক্রির তথ্য সংরক্ষিত থাকবে স্থাপিত এ মেশিনে এবং এনবিআরের সার্ভারে। ইচ্ছা করলে কেউ এর তথ্য মুছে ফেলতে পারবে না। আর বিদ্যুৎ বা নেটওয়ার্ক না থাকলেও এ মেশিন অফলাইনে তথ্যাদি নিজস্ব মেমোরিতে ধারণ করবে। পরবর্তী সময়ে বিদ্যুৎ ও নেটওয়ার্ক ফিরে এলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা সেন্ট্রাল সার্ভারের সঙ্গে সমন্বয় হয়ে যাবে। জেনেক্স ইনফোসিস ব্যবসা ও বিক্রির লেনদেনের তথ্যের কারসাজি করতে পারবে না বলেও জানান কর্মকর্তারা।

spot_imgspot_img

ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর দিল ভিএফএস

ভিএফএস গ্লোবালের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসেছে ভিএফএস গ্লোবাল। এবার তারা ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর নিয়ে এসেছে। ভিএফএস তাদের নিজস্ব ফেসবুক পেজের মাধ্যমে...

জেলখানার চিঠি বিকাশ চন্দ্র বিশ্বাস  কয়েদি নং: ৯৬৮ /এ  খুলনা জেলা কারাগার  ডেথ রেফারেন্স নং: ১০০/২১ একজন ব্যক্তি যখন অথই সাগরে পড়ে যায়, কোনো কূলকিনারা পায় না, তখন যদি...

কর্মসৃজনের ৫১টি প্রকল্পে নয়ছয় মাগুরায়

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির (ইজিপিপি) আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ের ৫১টি প্রকল্পের কাজে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। প্রকল্পে হাজিরা খাতা না...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here