Friday, June 21, 2024

শিশুদের প্রতি নবীজির ভালোবাসা

অর্থভুবন প্রতিবেদক

মানবশিশু জাতির শ্রেষ্ঠ সম্পদ। পরিবার গঠনের অন্যতম অনুষঙ্গ। আনন্দের কেন্দ্রবিন্দু। আল্লাহতায়ালার অপার অনুগ্রহ ও সেরা দান। প্রতিটি শিশু পুষ্পতুল্য। ফুল যেমন পবিত্র, তেমন প্রতিটি শিশু পুষ্পের ন্যায় পবিত্র ও কলুষমুক্ত। পুষ্প যেমন প্রস্ফুটিত হয়ে তার সৌরভ-সৌন্দর্যে মুগ্ধ করে, তেমনি শিশুরাও বড় হয়ে জ্ঞানে-গুণে সমৃদ্ধ হয়ে পৃথিবীকে আলোকিত ও সমৃদ্ধ করে। শিশুদের প্রতি রাসুল (সা.)-এর ভালোবাসা ও আচরণ ছিল অনুকরণীয়।

শিশুদের স্নেহ করা নবীজির আদর্শ

রাসুল (সা.) শিশুদের খুব আদর করতেন। অন্যদের তুলনায় নিষ্পাপ শিশুরা তাঁর কাছে খুব প্রিয় ছিল। জীবনের কঠিন মুহূর্তেও তিনি তাদের কথা মনে রাখতেন। সর্বদা আদর-স্নেহের চাদরে তাদের জড়িয়ে রাখতেন। হজরত উবাদা ইবনে সামেত (রা.) সূত্রে বর্ণিত; রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি শিশুদের স্নেহ করে না এবং বড়দের সম্মান করে না, সে আমাদের দলভুক্ত নয়।’ (মুসনাদে আহমদ : ২২৬৫৪)।

শিশুদের সঙ্গে ক্রীড়া-কৌতুক

রাসুল (সা.) হৃদয়ের সবটুকু আবেগ-ভালোবাসা দিয়ে শিশুদের খুশি রাখার ও আনন্দ দেওয়ার চেষ্টা করতেন। শিশুদের সঙ্গ পেলে তিনি তাদের সঙ্গে ক্রীড়া-কৌতুকে মেতে উঠতেন। তাদের খেলাধুলা, ছোটাছুটি, দৌড়াদৌড়ি ও হৈ চৈ রাসুল (সা.) কে বড্ডো আনন্দ দিতো। মন খারাপের সময় ক্রীড়া-কৌতুকের মাধ্যমে তিনি তাদের মন ভালো ও প্রশান্ত করার চেষ্টা করতেন। হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) আমাদের বাড়ি আসতেন। আমার ছোট ভাইয়ের (যার উপনাম ছিল আবু উমায়ের) একটি বুলবুলি পাখি ছিল। সে পাখিটি নিয়ে খেলা করত। একসময় পাখিটি মারা যায়। এরপর একদিন রাসুল (সা.) আমাদের বাড়ি এসে দেখেন, আবু উমায়ের মন খারাপ করে আছে। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, ‘তার কী হয়েছে?’ তারা বলল, ‘তার বুলবুলি পাখিটি মারা গেছে।’ তিনি ছন্দ মিলিয়ে বললেন, ‘হে আবু উমায়ের! কী করেছে তোমার নুগায়ের?’ (সুনানে আবি দাউদ : ৪৯৭১)। রাসুল (সা.) এ কথা বলে তাকে আনন্দ দেওয়ার চেষ্টা করেন।

শিশুদের চুমু দেওয়া

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, একবার রাসুল (সা.) তার নাতি হাসানকে চুমু খেলেন। সেখানে আকরা ইবনে হাসিব (রা.) বসা ছিলেন। হাসানকে চুমু খাওয়া দেখে তিনি বললেন, ‘আমি ১০ সন্তানের জনক। আমি তাদের কাউকে এখনও পর্যন্ত চুমু খাইনি।’ রাসুল (সা.) বললেন, ‘যে দয়া করে না, তার প্রতিও দয়া করা হয় না।’ (বোখারি : ৫৬৫১)। অন্য এক হাদিসে এরশাদ হয়েছে, হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, এক গ্রাম্য ব্যক্তি রাসুল (সা.)-এর কাছে এলো। রাসুল (সা.) তাকে বললেন, ‘তোমরা কি তোমাদের শিশুদের চুমু খাও?’ সে বলল, ‘না, আমরা তাদের চুমু দিই না।’ রাসুল (সা.) বললেন, ‘তোমাদের অন্তরে যদি দয়া-মায়া না থাকে, তাহলে আমার কী করার আছে?’ (বোখারি : ৫৬৫২)।

শিশুদের জন্য দোয়া করা

ইসলামে সালাম একটি দোয়া ও ইবাদত। ছোটরা বড়দের সালাম দেবে এবং বড়রাও দীক্ষার জন্য ছোটদের সালাম দেবে, এটাই ইসলামের শিক্ষা। হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) যখন আনসারদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যেতেন, তখন তাদের শিশুদের সালাম দিতেন। তাদের মাথায় হাত বুলিয়ে তাদের জন্য দোয়া করতেন।’ (সহিহ ইবনে হিব্বান : ৪৫১)।

শিশুদের অধিকারকে প্রাধান্য দেওয়া

রাসুল (সা.) সবসময় শিশুদের অধিকারের বিষয়ে সতর্ক ও সচেতন ছিলেন। অন্যদের তুলনায় তাদের বিষয়টি বেশি প্রাধান্য দিতেন। হজরত সাহল ইবনে সাদ (রা.) সূত্রে বর্ণিত; তিনি বলেন, রাসুল (সা.)-এর কাছে একটি পানির পেয়ালা আনা হলো। তিনি তা থেকে পান করলেন। তাঁর ডানদিকে একজন বালক ছিল, সে ছিল লোকদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়স্ক। বয়োজ্যেষ্ঠরা তার বাঁ-দিকে ছিল। রাসুল (সা.) বললেন, ‘হে বালক! তুমি কি আমাকে জ্যেষ্ঠদের এটা দিতে অনুমতি দেবে?’ সে বলল, ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ (সা.)! আমি আপনার উচ্ছিষ্টের ব্যাপারে নিজের ওপর কাউকে প্রাধান্য দিতে চাই না। এরপর তিনি তাকেই সেটা দিলেন।’ (বোখারি : ২৩৬৬)।

শিশুদের ভালোবাসার মূল্যায়ন

শিশুদের প্রতি রাসুল (সা.)-এর অগাধ ভালোবাসার কারণে শিশুরাও তাঁকে গভীরভাবে ভালোবাসতো। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে জাফর (রা.) বলেন, ‘রাসুল (সা.) যখন কোনো সফর শেষে বাড়ি ফিরতেন, তখন শিশুরা তার আগমনের পথে দাঁড়িয়ে অভ্যর্থনা জানাত। একবার তিনি তার সফর থেকে এসে আমাকে তার বাহনের সামনে বসালেন। অতঃপর হজরত হাসান ও হুসাইন (রা.) কে বাহনের পেছনে বসালেন। তারপর আমাদের নিয়ে তিনি মদিনায় প্রবেশ করলেন।’ (মুসলিম : ৬৪২১)।

শিশুদের কল্যাণে করণীয়

শিশুরা সাধারণত দুষ্টু ও চঞ্চল প্রকৃতির হয়ে থাকে। অবুঝমনা এ শিশুদের খামখেয়ালিপনা কর্মকা-ে অন্যরা রাগান্বিত হলেও রাসুল (সা.) কখনও বিরক্তবোধ করতেন না। নামাজরত অবস্থায় তারা তাঁর সঙ্গে খেলা করত। তাদের সঙ্গে তার বন্ধুসুলভ ও প্রীতিপূর্ণ আচরণ দেখে অন্যরা অবাক হতো। শিশুরা দেশ ও জাতির ভবিষ্যৎ কর্ণধার। এ জন্য শিশুদের সুষ্ঠু প্রতিপালন, শিষ্টাচার শিক্ষা দেওয়া, সুশিক্ষা ও চিকিৎসা নিশ্চিতকরণসহ জীবনের শুরু থেকেই তাদের ধর্মীয় অনুশাসনে গড়ে তোলার পাশাপাশি ধর্মীয় চেতনা ও মূল্যবোধ তাদের মধ্যে জাগিয়ে তুলতে হবে। হালাল-হারাম ও ভালো-মন্দের পার্থক্যজ্ঞান বুঝিয়ে দিতে হবে। মিথ্যা কোনো অজুহাতে তাদের আশ্বস্ত করা থেকে বিরত থাকতে হবে। অসৎ সঙ্গ থেকে বিরত রাখতে হবে। তাদের অভিযোগ, অনুরাগ ও অনুভূতির যথাযথ মূল্যায়ন করতে হবে। তাদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়তে হবে। তাদের কোনো কাজের নির্দেশ করার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে। জোরপূর্বক কোনো বিষয় তাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া যাবে না। উপদেশ দানে তাদের স্বতঃস্ফূর্ত আগ্রহের প্রতি দৃষ্টি রাখতে হবে। তাদের মধ্যে অনৈতিক আচরণ ও অপরাধপ্রবণতা দেখা দিলে মৃদু শাসনে তাদের সংশোধনের চেষ্টা করা চাই। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনে কিছুটা কৌশলী হতে হবে। সামান্য ভুল-ভ্রান্তিতে তাদেরকে তিরস্কার ও উপহাস করা থেকে বিরত থাকতে হবে। তবে কোমলমাখা শাসন তাদের অবশ্যই প্রাপ্য। তাদের সুষ্ঠু বিনোদন ও খেলাধুলার সুন্দর সুযোগ করে দিতে হবে। তারা কোথায় যাচ্ছে, কী করছে, কাদের সঙ্গে মিশছে, কাকে বন্ধুরূপে গ্রহণ করছে, এসব বিষয়ে সজাগ ও সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। সবসময় তাদের কল্যাণ কামনা করে আল্লাহর কাছে দোয়া করতে হবে। রাগ-অনুরাগের বশীভূত হয়ে তাদের জন্য বদ দোয়া করা যাবে না। কেননা, রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘তোমরা নিজেদের জন্য বদ দোয়া করো না। সন্তানদের জন্য বদ দোয়া করো না। সম্পদের প্রতি বদ দোয়া করো না। এমন হতে পারে, আল্লাহর কাছে দোয়া কবুল হওয়ার সময় তোমরা বদ দোয়া করলে, আর আল্লাহ তা কবুল করে নিলেন।’ (মুসলিম : ৩০০৯)।

 
spot_imgspot_img

ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর দিল ভিএফএস

ভিএফএস গ্লোবালের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসেছে ভিএফএস গ্লোবাল। এবার তারা ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর নিয়ে এসেছে। ভিএফএস তাদের নিজস্ব ফেসবুক পেজের মাধ্যমে...

জেলখানার চিঠি বিকাশ চন্দ্র বিশ্বাস  কয়েদি নং: ৯৬৮ /এ  খুলনা জেলা কারাগার  ডেথ রেফারেন্স নং: ১০০/২১ একজন ব্যক্তি যখন অথই সাগরে পড়ে যায়, কোনো কূলকিনারা পায় না, তখন যদি...

কর্মসৃজনের ৫১টি প্রকল্পে নয়ছয় মাগুরায়

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির (ইজিপিপি) আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ের ৫১টি প্রকল্পের কাজে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। প্রকল্পে হাজিরা খাতা না...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here