Wednesday, June 12, 2024

মহানবীর আকিকা কেমন ছিল

অর্থভুবন ডেস্ক

ইসলামে আকিকার গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনেক। মা-বাবার ওপর নবজাতকের হক। এটা মুসলিম সভ্যতা-সংস্কৃতির অংশ। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আকিকা করতে উৎসাহিত করেছেন এবং এর নিয়ম-কানুন জানিয়ে দিয়েছেন।

 
তিনি নিজে হাসান ও হজরত হুসাইন (রা.)-এর আকিকা আদায় করেছেন। কিন্তু তাঁর নিজের আকিকার বিষয়ে বিভিন্ন বর্ণনা পাওয়া যায়। সংক্ষেপে সে বিষয়ে আলোচনা করা হলো।

 

আরবের প্রচলিত আকিকা

আকিকার ইতিহাস বেশ পুরনো।

 
ইসলাম-পূর্ব যুগে আরবদের কাছে আকিকা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তাদের প্রধান উৎসবগুলোর মধ্যে এটা অন্যতম ছিল। আর ছিল বিভিন্ন কুসংস্কারের আড়ত। মক্কার কুরাইশরা ইবরাহিম (আ.)-এর সুন্নত অনুসরণে আকিকার উৎসব পালন করত।
 
(সিরাত বিশ্বকোষ : ৪/২২৯)

 

নবীজির আকিকা কে করেন?

নবীজি (সা.)-এর আকিকা কে করেছিলেন—এ নিয়ে দুটি বর্ণনা প্রসিদ্ধ—এক. রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর দাদা আব্দুল মুত্তালিব নিজেই তাঁর জন্মের সপ্তম দিবসে কোরবানি দেন এবং সব কুরাইশকে দাওয়াত করেছিলেন। (রাহমাতুল্লিল আলামিন : ১/৪৩-৪৪; সিরাতুল মুস্তফা : ১/৬১)

দুই. কোনো কোনো বর্ণনা মতে, নবুয়ত লাভের পর রাসুলুল্লাহ (সা.) নিজেই আকিকা করেছিলেন। (জাদুল মাআদ : ১/৫; সিরাত বিশ্বকোষ : ৪/২৩০ )

নবীর নাম ও আকিকা

মহানবী (সা.) জন্ম গ্রহণ করার সপ্তম দিনে আব্দুল মুত্তালিব তাঁর আকিকা করেন। মক্কার সব কুরাইশকে দাওয়াত দেন। সেখানে ‘মুহাম্মদ’ নাম রাখার ঘোষণা দেন।

 
কুরাইশরা বলল, এ নামটি আপনি কিভাবে নির্বাচন করলেন? এ নাম তো আপনার পূর্বপুরুষ কিংবা আপনার গোত্রের কেউ কোনো দিন রাখেনি! আব্দুল মুত্তালিব বলেন, এ নাম আমি এ জন্য রেখেছি যে যাতে আল্লাহর সমস্ত সৃষ্টি এই নবজাতকের প্রশংসা করে।

 

(ফাতহুল বারি : ৭/১২৪; সিরাতুল মুস্তফা : ১/৬৩)

নবীর নামের ইলহাম

আব্দুল মুত্তালিব রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর জন্মের আগে একটি স্বপ্ন দেখেন। যার বিস্তারিত বিবরণ সিরাতের বিভিন্ন কিতাবে পাওয়া যায়। স্বপ্নের ব্যাখ্যায় পণ্ডিতরা বলেন, আপনার বংশে এমন এক ব্যক্তি জন্মগ্রহণ করবে, পূর্ব থেকে পশ্চিম প্রান্ত পর্যন্ত সব মানুষ তার অনুসরণ করবে এবং আসমান-জমিনের অধিবাসীরা তার প্রশংসা স্তূতি জ্ঞাপন করবে। এ কারণে আব্দুল মুত্তালিবের মনে তার নাম ‘মুহাম্মদ’ রাখার আগ্রহ জাগে। তিনি ভরা মজলিসে সবাইকে ওই নাম শুনিয়ে দেন। (সিরাতুল মুস্তফা : ১/৬৩)

আকিকার পশু

মহানবী (সা.)-এর আকিকায় কোন ধরনের পশু জবাই করা হয়েছিল এবং তার সংখ্যা কত ছিল এ নিয়ে সিরাত গ্রন্থে সুস্পষ্ট কোনো বক্তব্য নেই। একটি বর্ণনায় এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর আকিকায় অনেক উট কোরবানি করা হয়েছিল। আর পশুগুলো আব্দুল মুত্তালিব নিজেই জবাই করেছিলেন। (সিরাত বিশ্বকোষ : ৪/৩১)

লেখক : আলেম ও কবি

 

spot_imgspot_img

দেশের উপকূলে সেরা সব সমুদ্র সৈকত

সমুদ্র তটরেখার দেশ বাংলাদেশ। এ দেশ অপরূপ এক বদ্বীপ। আর এই বদ্বীপের জন্য প্রকৃতির আশীর্বাদ বঙ্গোপসাগর। সাগরের নোনা জলে অনেক কিছু পেয়েছে এদেশের মানুষ।...

‘ফুরমোন পাহাড়’ পর্যটকদের মুগ্ধ করছে

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি পাহাড়ি জেলা রাঙ্গামাটি। যেটি রূপের রানী নামে খ্যাত। পাহাড়, মেঘ, ঝিরি-ঝর্ণা, আঁকাবাঁকা পথের সঙ্গে মিশে আছে সুবিশাল মিঠাপানির কাপ্তাই হ্রদ। শহরে...

রাখাইনের সহিসংতা নৃশংসতার দিকে চলে যেতে পারে: যুক্তরাষ্ট্র

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা এবং আন্তঃসাম্প্রদায়িক উত্তেজনা বাড়ার কারণে যুক্তরাষ্ট্র গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। যুক্তরাষ্ট্র মঙ্গলবার এ কথা জানিয়ে বলেছে, রাখাইনের সহিসংতা নৃশংসতার দিকে চলে যেতে পারে। নভেম্বরে...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here