Wednesday, June 19, 2024

ভবিষ্যতের মহামারী একাকিত্ব!

মানুষ নিঃসঙ্গ জীব নয়। শুধু নিজেকে নিয়ে বা নিজের সঙ্গে বাঁচা তার পক্ষে সম্ভব নয়। মানুষ আনন্দের অংশীদার চায়। আর দুঃসময়ে দুঃখের কথা শোনার নির্ভরযোগ্য কাউকে পাশে চায়। যখন আন্তরিক কাউকে না পায় তখন দুঃসময়টা আরও দীর্ঘ হয়। চারপাশ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিতে থাকে। ধীরে ধীরে সে আরও একা হয়ে যায়। বিষণœতায় ডুবে গিয়ে একসময় জীবনের প্রতিই আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। বেছে নেয় আত্মহত্যার মতো পথ। কমিয়ে দিচ্ছে মানুষের সৃজনশীলতা, সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা ও কর্মদক্ষতা। একাকিত্বে ভোগা মানুষের শরীরে বাসা বাঁধে হৃদরোগ, ডিমেনশিয়া,ডিপ্রেশন ও অ্যাংজাইটির মতো রোগ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, একাকিত্ব এখন নিজেই বড় একটা রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভবিষ্যতে বিশ্ব স্বাস্থ্যের জন্য বড় হুমকি হয়ে উঠবে এটি। কেউ কেউ আবার একাকিত্বকে ভবিষ্যতের মহামারী হিসেবেও আখ্যা দিচ্ছেন।

গত বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে বলেছে, একাকিত্ব দিন দিন মানুষের ভয়ংকর স্বাস্থ্য সংকট হয়ে উঠছে। এ অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের জনস্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান কর্মকর্তা সার্জন জেনারেল ডক্টর বিবেক মূর্তির নেতৃত্বে একটি আন্তর্জাতিক কমিশন গঠন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তিন বছর দরে এই কমিশন একাকিত্ব কমানোর বিষয়ে নানা ধরনের পরামর্শ ও জনসচেতনতায় কাজ করবে। ওই কমিশনে আছেন, আফ্রিকান ইউনিয়নের পরামর্শক দল ছিদো এম্পেমবা, ভানুয়াতুর জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী রাল্ফ রেগেনভানু ও জাপানের একাকিত্ব ও বিচ্ছিন্নতাবিষয়ক মন্ত্রী আয়ুকো কাটো।

বিবেক মূর্তি বলেন, একাকিত্ব ক্রমবর্ধমান স্বাস্থ্যগত মহামারীর দিকে যাচ্ছে। সুখ-দুঃখের আলাপ করার জন্য নিকটজন আছে, এটা বলার মতো লোকের সংখ্যা দিন দিন কমছে। সার্জন জেনারেল হিসেবে কাছ থেকে দেখেছি, একাকিত্বের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে কিশোর-কিশোরীরা কীভাবে সহিংসতা, ড্রাগ ও গ্যাং কালচারে ঝুঁকে পড়ছে।

তিনি বলেন, হৃদরোগ বা ডায়াবেটিসের মূল উৎস হলো একাকিত্ব। যত রোগ আমি দেখেছি একাকিত্ব প্রায়ই এই রোগগুলোর মূল কারণ। এটা যে রকম মানুষকে অসুস্থ করছে, তেমনি রোগীর রোগ নিরাময়কেও কঠিন করে তুলছে। একাকিত্ব ও দুর্বল সামাজিক যোগাযোগ মানুষের আয়ু কমিয়ে দিচ্ছে। দিনে ১৫টি সিগারেট যে পরিমাণ আয়ু কমে একাকিত্ব এবং দুর্বল সামাজিক যোগাযোগ সেই পরিমাণ আয়ু কমায়। স্থূলতা যতটা আয়ু কমায় একাকিত্ব ও দুর্বল সামাজিক যোগাযোগ তার চেয়ে বেশি আয়ু কমিয়ে দেয়।

তিনি আরও বলেন, ‘আসলে তামাক নিয়ন্ত্রণ বা স্থূলতা কমাতে আমরা যতটা সোচ্চার হই, মানুষে মানুষে বাস্তব সামাজিক বন্ধন জোরদার করতে আমরা তেমন মনোযোগ দিই না। অথচ হৃদরোগ, ডিমেনশিয়া, ডিপ্রেশন ও অ্যাংজাইটির সঙ্গে একাকিত্ব ওতপ্রোতভাবে জড়িত।’

মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, ‘মানুষ যখন বাস্তব সামাজিক যোগাযোগ ছিন্ন হয়ে যায়, তখন এই সামাজিক যোগাযোগের অনুপস্থিতি আমাদের দেহমনে একটা স্ট্রেস, চাপ সৃষ্টি করে। এই স্ট্রেস, এই চাপ, আমাদের স্ট্রেস-হরমোন কর্টিসলের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়। শরীরে এক ধরনের প্রদাহ সৃষ্টি করে, যা শরীরে নানান রোগকে স্বাগত জানায়। মানুষকে ঠেলে দেয় অকালমৃত্যুর দিকে। তাই আগামীর মহামারী মোকাবিলায় বাস্তব সামাজিক যোগাযোগ বাড়ানোর বিকল্প নেই।’

spot_imgspot_img

দেশের উপকূলে সেরা সব সমুদ্র সৈকত

সমুদ্র তটরেখার দেশ বাংলাদেশ। এ দেশ অপরূপ এক বদ্বীপ। আর এই বদ্বীপের জন্য প্রকৃতির আশীর্বাদ বঙ্গোপসাগর। সাগরের নোনা জলে অনেক কিছু পেয়েছে এদেশের মানুষ।...

‘ফুরমোন পাহাড়’ পর্যটকদের মুগ্ধ করছে

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি পাহাড়ি জেলা রাঙ্গামাটি। যেটি রূপের রানী নামে খ্যাত। পাহাড়, মেঘ, ঝিরি-ঝর্ণা, আঁকাবাঁকা পথের সঙ্গে মিশে আছে সুবিশাল মিঠাপানির কাপ্তাই হ্রদ। শহরে...

রাখাইনের সহিসংতা নৃশংসতার দিকে চলে যেতে পারে: যুক্তরাষ্ট্র

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা এবং আন্তঃসাম্প্রদায়িক উত্তেজনা বাড়ার কারণে যুক্তরাষ্ট্র গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। যুক্তরাষ্ট্র মঙ্গলবার এ কথা জানিয়ে বলেছে, রাখাইনের সহিসংতা নৃশংসতার দিকে চলে যেতে পারে। নভেম্বরে...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here