Saturday, June 22, 2024

মোজাহিদ লাখোপতি কৃষিতে

পড়াশোনার পাশাপাশি কৃষিকাজ করে মাসে লাখ টাকা আয় করছেন হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার জালুয়াবাদ গ্রামের মোজাহিদ মিয়া। সবে এইচএসসি পাস করেছেন তিনি।

বাবা কৃষক। সেই সূত্রে ছোটবেলা থেকেই কৃষির সঙ্গে সম্পৃক্ত মোজাহিদ। গত বছর শাহজালাল সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছেন। তাঁর বড় ভাই অনার্সপড়ুয়া জুনাইদ মিয়াও কৃষির সঙ্গে জড়িত।

বাবা এবং দুই ভাই মিলে এখন প্রায় ৬২০ শতক জমিতে ফসল ফলাচ্ছেন। মোজাহিদরা কিছু ফসল যৌথভাবে, কিছু এককভাবে ফলান। একেক জমিতে একেক ধরনের ফসল বা সবজির চাষ করেন। যেমন—এবার ১৬০ শতক জমিতে বারি টমেটো, ১৯০ শতক জমিতে শসা, ৬০ শতক জমিতে মরিচ, বাকি জমিতে ধান রোপণ করেছেন।
কৃষিতে লাখোপতি মোজাহিদ

 
তরুণ কৃষক মোজাহিদ মিয়া

বাবা কৃষক। সেই সূত্রে ছোটবেলা থেকেই কৃষির সঙ্গে সম্পৃক্ত মোজাহিদ। গত বছর শাহজালাল সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছেন। তাঁর বড় ভাই অনার্সপড়ুয়া জুনাইদ মিয়াও কৃষির সঙ্গে জড়িত।

বাবা এবং দুই ভাই মিলে এখন প্রায় ৬২০ শতক জমিতে ফসল ফলাচ্ছেন। মোজাহিদরা কিছু ফসল যৌথভাবে, কিছু এককভাবে ফলান। একেক জমিতে একেক ধরনের ফসল বা সবজির চাষ করেন। যেমন—এবার ১৬০ শতক জমিতে বারি টমেটো, ১৯০ শতক জমিতে শসা, ৬০ শতক জমিতে মরিচ, বাকি জমিতে ধান রোপণ করেছেন।

ঠেকে শিখেছেন

শুরুর দিকে গ্রাফটিং পদ্ধতি টমেটো করেছিলেন মোহাজিদ। কিন্তু লাভের মুখ দেখেননি। উল্টো গচ্চা দিতে হয়েছিল প্রায় সাত লাখ টাকা। পরে বুঝলেন সঠিকভাবে মাটি তৈরি করতে না পারা এবং ভেজাল বীজের কারণে রোগাক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিল অনেক গাছ।

কিন্তু এত লসের পরও ভেঙে পড়েননি। বলছিলেন, ‘জমি তৈরি, ভালো বীজ, পোকামাকড় ব্যবস্থাপনা, আবহাওয়ার ধরন বুঝে ব্যবস্থা নেওয়া—এই চারটি জিনিস যাঁরা ভালো জানেন তাঁদের ক্ষতির আশঙ্কা নেই বললেই চলে। প্রথমবার তা বুঝতে পারিনি।’

গেল বছর পারিবারিকভাবে তাদের কৃষি থেকে আয় হয়েছে প্রায় ২০ লাখের বেশি। এক মাসে মোজাহিদ সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করেছেন।

এবার আগাম টমেটো চাষ করেছেন। খরচ হয়েছে চার লাখ টাকার মতো। এরই মধ্যে প্রায় ১২ লাখ টাকার টমেটো বিক্রি করেছেন। মোজাহিদের এই টমেটো চাষে বাবা, বড় ভাই বুদ্ধি-পরামর্শ ও মূলধন দিয়ে পাশে ছিলেন।

 

কৃষিতে লাখোপতি মোজাহিদ

এ বছর এরই মধ্যে প্রায় ১২ লাখ টাকার টমেটো বিক্রি করেছেন।  ছবি : সংগৃহীত

কৃষিই তাঁর প্রাণ

মনপ্রাণ উজাড় করে কৃষিকাজ করেন মোজাহিদ। চাষাবাদে অনেক খুঁটিনাটি বিষয় আছে। যেগুলো জানা থাকলে লাভের মুখ দেখা সহজ। এখন সবই মোজাহিদের নখদর্পণে। এই বয়সে এগুলো আয়ত্ত করলেন কিভাবে? ‘বাবার কাছ থেকে শিখেছি। ঢুষ খেলে হুঁশ বাড়ে। একা একা কাজ করতে গিয়ে প্রথমবার বিরাট লসের মুখোমুখি হয়েছিলাম। সেখান থেকেও শিখেছি অনেক।’

মোজাহিদ বড় হিসেবি। কোন ফসল কখন কিভাবে করলে ভালো দাম পাওয়া যাবে তা ভালো বোঝেন। আগাম ফসল বোনার চেষ্টা করেন। এভাবে এ পর্যন্ত টমেটো, শসা, আলু, মিষ্টিকুমড়ো, ফুলকপি, বেগুন, করলা চাষে সফল হয়েছেন। জমিতে পোকামাকড় দমনে তিনি নিজে বালাইনাশক স্প্রে শিডিউল তৈরি করে নিয়েছেন। মালচিং বিচানো, মালচিং ছিদ্র করা, মাচা দেওয়া ইত্যাদি কাজেও আছে তাঁর নিজ উদ্ভাবিত পদ্ধতি। এখন জালুয়াবাদ এলাকায় মোজাহিদ জনপ্রিয় চাষি। অন্য কৃষকরা তাঁর কাছ থেকে পরামর্শ নেন। সাকুর নামে মোজাহিদের এক বন্ধুও তাঁর দেখাদেখি কৃষিকাজ শুরু করেছেন।

মোজাহিদের দৃষ্টিতে কৃষিতে এখন মূল চ্যালঞ্জ আবহাওয়া। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে প্রকৃতি যখন যেমন আচরণ করার কথা তেমনটা করে না। বললেন, ‘কৃষিকাজে বেশি সমস্যা হয় আবহাওয়ার হুটহাট পরিবর্তনে। হঠাৎ রোদ, হঠাৎ বৃষ্টি গাছের খুব ক্ষতি করে।’

 

কৃষিতে লাখোপতি মোজাহিদ

এলাকার মানুষের কথাও ভাবেন

মোজাহিদের অধীনে সারা বছর পাঁচজন নারী কাজ করেন। তাদের বেতন ছাড়াও চিকিৎসা খরচ, ঈদে নতুন পোশাক, খাবারসহ সব রকমের সুবিধার ব্যবস্থা করেন। নতুন সবজি উঠলে এলাকার সব বাড়িতে তিনি উপহার পাঠান।

মোজাহিদদের জমি যেখানে সেখানে সড়ক ভালো নয়। বর্ষায় থাকে হাঁটুপানি। এতে ফসল পরিবহনে সমস্যা হয়। এই সমস্যা থেকে উত্তরণে বন্ধুদের নিয়ে সড়ক সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছিলেন মোজাহিদ। বস্তা দিয়ে পাইলিং করে মাটি ফেললেন। এতে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। সড়কটি সংস্কারের ফলে প্রায় ২০০ কৃষক উপকৃত হয়েছে।

 

চাকরির পেছনে ছুটবেন না

এ বছর কৃষি থেকে ৪০ লাখ টাকা আয় করার লক্ষ্য মোজাহিদের। ভবিষ্যতে চাকরির পেছনে না ছুটে অনেক তরুণকে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিতে চান তিনি। বললেন, ‘কৃষি স্বাধীন পেশা। স্বাধীনভাবে কাজ করছি। আয়ও হচ্ছে। সব মিলিয়ে আনন্দে ভরপুর জীবন। ভবিষ্যতে চাষাবাদের পরিধি আরো বিস্তৃত করতে চাই। যেখানে অনেক তরুণের কর্মসংস্থান হবে। উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি হবে তাঁরা।’

 

spot_imgspot_img

ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর দিল ভিএফএস

ভিএফএস গ্লোবালের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসেছে ভিএফএস গ্লোবাল। এবার তারা ইতালিপ্রবাসীদের জন্য সুখবর নিয়ে এসেছে। ভিএফএস তাদের নিজস্ব ফেসবুক পেজের মাধ্যমে...

জেলখানার চিঠি বিকাশ চন্দ্র বিশ্বাস  কয়েদি নং: ৯৬৮ /এ  খুলনা জেলা কারাগার  ডেথ রেফারেন্স নং: ১০০/২১ একজন ব্যক্তি যখন অথই সাগরে পড়ে যায়, কোনো কূলকিনারা পায় না, তখন যদি...

কর্মসৃজনের ৫১টি প্রকল্পে নয়ছয় মাগুরায়

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির (ইজিপিপি) আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ের ৫১টি প্রকল্পের কাজে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। প্রকল্পে হাজিরা খাতা না...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here